সারাবিশ্বে করোনায় দৈনিক মৃত্যুর সংখ্যা বেড়েছে

0
35
সারাদেশে করোনায় কারও মৃত্যু হয়নি
সারাদেশে করোনায় কারও মৃত্যু হয়নি

সারাবিশ্বে করোনায় আক্রান্ত হয়ে গত একদিনে বিশ্বে আরও ১ হাজার ৭২৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। একই সময়ে নতুন শনাক্ত হয়েছেন ৭ লাখ ৩৪ হাজার ২২৭ জন। এছাড়া একদিনে সুস্থ হয়েছেন ১০ লাখ ৮৭ হাজার ৭৮২ জন। অর্থাৎ আগের দিনের তুলনায় মৃত্যুর সংখ্যা বেড়েছে প্রায় পাঁচশো।

এ সময়ের মধ্যে আগের দিনের তুলনায় নতুন শনাক্ত রোগীর সংখ্যা বেড়েছে দুই লক্ষাধিক। এতে বিশ্বজুড়ে মৃতের সংখ্যা পৌঁছেছে ৬৪ লাখ ২৩ হাজার ৬৭২ জনে। এতে মহামারির শুরু থেকে এ পর্যন্ত ভাইরাসে আক্রান্ত মোট রোগীর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫৮ কোটি ৩৬ লাখ ৮৭ হাজার ৭৩৪ জনে।

বুধবার (৩ আগস্ট) সকাল সাড়ে ৮টায় আন্তর্জাতিক পরিসংখ্যানবিষয়ক ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটারস থেকে এসব তথ্য জানা গেছে।

২৪ ঘণ্টায় করোনায় সবচেয়ে বেশি মানুষের মৃত্যু হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রে, ৩৬৩ জনের। করোনায় সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত দেশটিতে এ পর্যন্ত ১০ লাখ ৫৫ হাজার ৯৭৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। মহামারির শুরু থেকে যুক্তরাষ্ট্রে করোনা শনাক্ত হয়েছে ৯ কোটি ৩৩ লাখ ১৯ হাজার ৭০২ জনের।

একদিনে সবচেয়ে বেশি করোনা শনাক্ত হয়েছে জাপানে, ১ লাখ ৬৭ হাজার ৬৭৮ জনের। এ নিয়ে দেশটিতে শনাক্ত বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১ কোটি ২৯ লাখ ১৭ হাজার ৫০০ জনে। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে ১০৯ জন মারা গেছেন। এ নিয়ে জাপানে মোট ৩২ হাজার ৬৯৪ জনের মৃত্যু হলো।

মৃত্যুর তালিকায় বিশ্বে দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা ব্রাজিলে একদিনে ২৭১ জনের মৃত্যু হয়েছে। লাতিন আমেরিকার দেশটিতে এ নিয়ে মৃত্যু বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬ লাখ ৭৯ হাজার ৬৩ জনে। সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় ব্রাজিলে ৩৩ হাজার ৬২৩ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে মোট শনাক্ত বেড়ে হয়েছে ৩ কোটি ৩৮ লাখ ৯০ হাজার ৪২৮ জন।

তাইওয়ানে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৩১ জন এবং নতুন করে ভাইরাসে সংক্রমিত হয়েছেন ২৩ হাজার ৫৫৬ জন। এছাড়া মহামারির শুরু থেকে এ পর্যন্ত দেশটিতে মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ৪৬ লাখ ২৮ হাজার ২৯৪ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ৮ হাজার ৯৯৪ জনের। একইসময়ে ইরানে নতুন করে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ৯ হাজার ৩৫০ জন এবং মারা গেছেন ৭৪ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় রাশিয়ায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৪৮ জন এবং নতুন করে ভাইরাসে সংক্রমিত হয়েছেন ৯ হাজার ৫৬০ জন। এছাড়া মহামারির শুরু থেকে এ পর্যন্ত দেশটিতে মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ১ কোটি ৮৬ লাখ ২২ হাজার ১০৩ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ৩ লাখ ৮২ হাজার ৫১৭ জনের। একইসময়ে নিউজিল্যান্ডে নতুন করে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ৭ হাজার ৩৮২ জন এবং মারা গেছেন ৩৪ জন।

এছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় অস্ট্রেলিয়ায় নতুন করে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ৩৫ হাজার ৪৬৮ জন এবং মারা গেছেন ৯৬ জন। একইসময়ে থাইল্যান্ডে নতুন করে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ১ হাজার ৮৪৩ জন এবং মারা গেছেন ২৭ জন। চিলিতে নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৫ হাজার ৮ জন এবং মারা গেছেন ৭ জন।

ইতালিতেও করোনায় মৃত্যু বেড়েছে। একদিনে দেশটিতে ১৯০ জনের মৃত্যু হয়েছে। একই সময়ে করোনা শনাক্ত হয়েছে ৬৪ হাজার ৮৬১ জনের। মহামারির শুরু থেকে দেশটিতে এ পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে ১ লাখ ৭২ হাজার ৩৯৭ জনের। এছাড়া ২ কোটি ১১ লাখ ২৪ হাজার ৬৪৪ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে ইউরোপের এ দেশটিতে।

সংক্রমণের দিক থেকে দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা প্রতিবেশি দেশ ভারতে একদিনে ১৫ হাজার ৬৭০ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে দেশটিতে শনাক্ত বেড়ে দাঁড়ালো ৪ কোটি ৪০ লাখ ৬৫ হাজার ৬৭৯ জনে। তবে সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে কোনো মৃত্যুর তথ্য পাওয়া যায়নি। ভারতে এ পর্যন্ত ৫ লাখ ২৬ হাজার ৪৩০ জনের মৃত্যু হয়েছে।

এছাড়াও একদিনে ফ্রান্সে ১০১ জনের, অস্ট্রেলিয়ায় ৯৬ জনের, রাশিয়ায় ৪৮ জনের, ইরানে ৭৪ জনের, রোমানিয়ায় ৩৮ জনের মৃত্যু হয়েছে।

এদিকে বাংলাদেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় ৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে দেশে মোট মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২৯ হাজার ২৯৫ জনে। একই সময়ে নতুন করে করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছেন ৩৮৭ জন। মহামারির শুরু থেকে এ পর্যন্ত মোট করোনা রোগী শনাক্তের সংখ্যা বেড়ে ২০ লাখ পাঁচ হাজার ৯৯৩ জনে দাঁড়িয়েছে।

২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীনের উহানে প্রথম করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়। এরপর ২০২০ সালের ১১ মার্চ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) করোনাকে ‘বৈশ্বিক মহামারি’ হিসেবে ঘোষণা করে। এর আগে একই বছরের ২০ জানুয়ারি বিশ্বজুড়ে জরুরি পরিস্থিতি ঘোষণা করে সংস্থাটি।