মুচি থেকে বিশ্বসেরা অ্যাডিডাসের প্রতিষ্ঠাতা অ্যাডলফ ডাসলার

0
74
অ্যাডিডাসের মালিক অ্যাডলফ ডাসলার

প্রতিটি দুর্দান্ত গল্পের শুরু থাকে। বিশ্বসেরা অ্যাডিডাস এজিরও একটি শুরুর গল্প রয়েছে। আর সেই গল্পের সফল কোম্পানিটির পথচলা শুরু হয়েছিল অ্যাডলফ ডাসলারের হাত ধরে। জার্মানির ছোট্ট একটি শহরে। অ্যাডিডাসের সফলতার মূল কারিগর প্রতিষ্ঠানটির প্রতিষ্ঠাতা অ্যাডলফ ডাসলার। তাঁর নাম অ্যাডলফ অ্যাডি ডাসলার। সবাই তাঁকে অ্যাডি বলেও ডাকতেন। জন্ম ও বেড়ে ওঠা জার্মানির হরজোজেনাউয়াচ শহরে।

প্রথম বিশ্বযুদ্ধ থেকে ফিরে মায়ের রান্নাঘরে বসেই নিজের স্পোর্টস সু তৈরি করেন তিনি। বাবা ক্রিস্টোফ ভন উইলহেল্ম ডাসলার জুতা কারখানার শ্রমিক হওয়ার সুবাদে বাবার হাত ধরেই জুতা বানানোর হাতেখড়ি হয়েছিল অ্যাডলফ ডাসলারের। অন্যদিকে জেহলিন ভাইয়েরা স্পোর্টস সুর স্পাইক বানাতেন নিজেদের কামারশালায়। সবাই অ্যাডলফ ডাসলারকে সাহায্য করেন জুতার ব্যবসা শুরু করতে।

১৯২৪ সালে বড় ভাই রুডলফ ডাসলার যোগ দেন। দুই ভাই মিলে প্রতিষ্ঠানের নাম দেন জিবারডার ডাসলার সু ফেব্রিক বা ডাসলার ব্রাদার্স সু ফ্যাক্টরি। আন্তর্জাতিক নানা প্রতিযোগিতায় স্বর্ণপদক পেতে থাকে জার্মান অ্যাথলেটরা। যার একটা বড় কৃতিত্ব পাচ্ছিলেন ডাসলার ব্রাদার্স। ১৯৩৯ সালে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ শুরু হলে আর্থিক মন্দায় অনেক কোম্পানি বন্ধ হয়ে যেতে থাকে। শ্রমিক পাওয়ায় দুষ্কর হয়ে পড়ে, কারণ বেশির ভাগ মানুষকে সেনাবাহিনীতে যোগ দিতে বাধ্য করা হয়। যুদ্ধের প্রথম দিকে ‘ড্যাজলার ব্রাদার্স সু ফ্যাক্টরির’ দায়িত্ব নেয় রুডলফ ডাসলার। ১৯৪০ সালে যুদ্ধে চলে যান অ্যাডলফ।

কোম্পানিতে তাঁর প্রয়োজন অনেক বেশি- এমন অনুভব থেকে ছাড়পত্র নিয়ে চলে আসেন। নানা কারণে দুই ভাইয়ের মধ্যে সম্পর্কের চরম অবনতি ঘটে। যার ফলে তারা বেশি দিন একসঙ্গে থাকতে পারেননি। এদিকে নিজের কারিগরি দক্ষতাকে পুঁজি করে ১৯৪৮ সালে অ্যাডিডাস প্রতিষ্ঠা করেন অ্যাডলফ ডাসলার। ৪৭ জন কর্মচারী নিয়ে ছোট্ট হারজোজেনাউয়াচ শহরে জুতার ফ্যাক্টরি স্থাপন করেন। একই দিনে একটি জুতারও নিবন্ধন করেন তিনি। এটি ছিল অ্যাডিডাসের বিখ্যাত থ্রি স্ট্রাইপ জুতা। এর কয়েক বছর পর, শুরু হয় ১৯৫৪ বিশ্বকাপ আসর, জার্মান ফুটবল দল যখন অপরাজিত হাঙ্গেরিদের মুখোমুখি হয়েছিল। সেবার জার্মান ফুটবল দল শক্তিশালী হাঙ্গেরিকে হারায়। এতেই অ্যাডিডাসের বাজিমাত। কারণ জার্মান ফুটবলারদের পায়ে ছিল অ্যাডিডাসের ফুটবল বুট। এসব বুট ছিল প্রচলিত ইংলিশ বুটের চেয়ে হালকা ও আরামদায়ক। অ্যাডিডাস বিদেশি গণমাধ্যমের নজর কাড়লে তিনি সুযোগ কাজে লাগান।

নাইকি ও পুমার মতো সেরা সেরা স্পোর্টস সু ব্র্যান্ডকে হারিয়ে কীভাবে নিজেকে সামনে এগিয়ে নিয়ে যাবে সে ভাবনায় বিভোর থাকতেন অ্যাডলফ। তাই তিনি জুতা বানানোর পাশাপাশি খেলোয়াড়দের সঙ্গে মিশতেন, বিশ্বের সেরা অ্যাথলেটদের আস্থা অর্জন করেছিলেন অ্যাডলফ ডাসলার। অ্যাথলেটদের কাছ থেকে তিনি শুনতেন তাদের কী প্রয়োজন, কোথায় অসুবিধা। এসবের প্রতিফলন ঘটাতেন তাঁর পণ্যে। ১৯৬৭ সালের আগ পর্যন্ত অ্যাডলফের অ্যাডিডাস কেবল জুতাই বানিয়েছেন।

১৯৬৭ সালে প্রথমবারের মতো মনোযোগ দিয়েছিলেন ট্র্যাকস্যুটে। আর সেই ট্র্যাকস্যুটটি তৈরি করা হয়েছিল সে সময়ের জার্মান ফুটবলার ফ্রান্ৎস বেকেনবাউয়ারের জন্য। অ্যাডলফ ডাসলার নিজে সব সময় নতুন কিছু উদ্ভাবন বা আবিষ্কার করতে চাইতেন। তাই ১৯৭০ সালের বিশ্বকাপে অফিশিয়াল ফুটবল ‘টেলস্টার’ সরবরাহ করে অ্যাডিডাস। সাদা-কালো টিভিতে যাতে সহজে চোখে পড়ে সেভাবেই তৈরি হয়েছিল সেই ফুটবলগুলো। পরের বিশ্বকাপগুলোতেও বল সরবরাহ করে সেরা স্পোর্টস ব্র্যান্ড অ্যাডিডাস। ক্রীড়াবিদদের অনেকের পায়ে পৌঁছে যায় অ্যাডিডাসের থ্রি-স্ট্রাইপ জুতা।

আর্জেন্টিনার জাতীয় ফুটবল দলের পায়ে ওঠে অ্যাডিডাসের জুতা। অ্যাডিডাসের বুট পায়ে পর্বতারোহণে নিখুঁতভাবে ১০ স্কোর করতে থাকেন অনেক পর্বতারোহী। ১৯৭৮ সালে নিজের ৭৮তম জন্মদিনের কয়েক দিন আগে মারা যান অ্যাডলফ ডাসলার যিনি একা হাতে অ্যাডিডাসের উদ্ভাবনী কর্মকা- এগিয়ে নিচ্ছিলেন। তাঁর মৃত্যুর পর হাল ধরেন স্ত্রী কেথ এবং ছেলে হর্স্ট ডাসলার। মায়ের মৃত্যুর দুই বছরের মাথায় আকস্মিকভাবে মারা যান হর্স্ট ডাসলারও।

ডাসলার পরিবারের নিয়ন্ত্রণ হারানোর পর অ্যাডিডাসে বিশৃঙ্খলা দেখা দেয়। যোগ্য নেতৃত্বের অভাব এবং নানা বিতর্কিত পদক্ষেপের কারণে কোম্পানি দেউলিয়াত্বের দ্বারপ্রান্তে পৌঁছে যায়। তবে সেখান থেকেও ঘুরে দাঁড়ানোর গল্প রয়েছে।

১৯৬৭ সালে সর্বপ্রথম অ্যাডিডাসের তৈরি স্পোর্টস ওয়্যার পরিধান করেন জার্মানির প্রাক্তন খেলোয়াড় ফ্রান্ৎস বেকেনবাউয়ার। পরবর্তীকালে জিনেদিন জিদান, মাইকেল বালাক ও অ্যালিসন ফেলিক্সের মতো সেরা খেলোয়াড়রাও যুক্ত হয়েছিলেন কোম্পানিটির সঙ্গে। ফুটবল ছাড়াও বাস্কেটবল, গল্ফ, টেনিস, ক্রিকেট, রাগবি, স্কেটবোর্ডিং, জিমন্যাস্টিকসের সঙ্গে অ্যাডিডাস ওতপ্রোতভাবে জড়িত। অ্যাডিডাসের প্রধান উৎসগুলোর মধ্যে একটি হলো ফুটবল এবং এর সঙ্গে সম্পর্কিত অসংখ্য সামগ্রী। কোম্পানিটি বায়ার্ন মিউনিখ, এ সি মিলান, চেলসি এবং রিয়াল মাদ্রিদের মতো আন্তর্জাতিক ক্লাবগুলোর জন্য প্রয়োজনীয় ফুটবল সামগ্রী ও খেলনা সরবরাহ করে থাকে।

২০২০ সালের হিসাব মতে, অ্যাডিডাস কোম্পানির মোট সম্পত্তির পরিমাণ ১৬.৪৮ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। মাত্র এক বছর আগেও এর মূল্য ছিল কয়েক মিলিয়ন ডলারের নিচে। এর আগের ইতিহাসটি সবারই জানা। প্রায় এক শতাব্দী আগেও কোম্পানিটি ছোট একটি লন্ড্রি দোকান থেকে কাজ শুরু করেছিল।