গুলিবিদ্ধ ছাত্রদল সভাপতির মৃত্যু

0
56
গুলিবিদ্ধ ছাত্রদল সভাপতির মৃত্যু
গুলিবিদ্ধ ছাত্রদল সভাপতির মৃত্যু

পুলিশের গুলিতে আহত জেলা ছাত্রদল সভাপতি নুরে আলম মারা গেছেন। আজ দুপুরে রাজধানীর একটি হাসপাতালে লাইফ সাপোর্টে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। এর আগে পুলিশের গুলিতে আবদুর রহিম নামে স্বেচ্ছাসেবক দলের এক নেতা নিহত হন। এ নিয়ে ওই সংঘর্ষের ঘটনায় বিএনপির ২  নেতা নিহত হলো।

বুধবার (০৩ আগস্ট) বিকেল ৩টায় রাজধানীর একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। মৃত নুরে আলমের শ্বশুর আবুল বাসেদ বিষয়টি জানিয়েছেন। এমনকি জেলা বিএনপির পক্ষ থেকেও ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, গত ৩১ জুলাই বিএনপির দেশব্যাপী কর্মসূচির অংশ হিসেবে ভোলা জেলা বিএনপি তেল-গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধি এবং লোডশেডিংয়ের প্রতিবাদে বিক্ষোভ-সমাবেশ করে। পরে বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে রাস্তায় নামতে গেলে পুলিশের সাথে নেতা-কর্মীদের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এসময় ব্যাপক ইট-পাটকেল নিক্ষেপ ও ভাঙচুর করে বিএনপির নেতা কর্মীরা। পুলিশ ৩৫ রাউন্ড টিআর সেল এবং ১৬৫ রাউন্ড রাবার বুলেট ও শর্টগানের গুলি ছোড়ে। সংঘর্ষে ১০ পুলিশ সদস্যসহ বিএনপির অন্তত অর্ধশত নেতাকর্মী আহত হয়। প্রাণ হারায় আব্দুর রহিম নামে স্বেচ্ছাসেবক দলের এক কর্মী।

ওই সংঘর্ষে জেলা ছাত্রদলের সভাপতি নুরে আলম গুরুতর আহত হন। ভোলা সদর হাসপাতাল থেকে বরিশাল এবং ওই দিনই তাকে ঢাকায় নিয়ে যাওয়া হয়। তিনদিন লাইফ সাপোর্টে থাকার পর আজ দুপুরে ভোলা জেলা ছাত্রদল সভাপতি নুরে আলম রাজধানীর কমফোর্ট হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেন।