ইসরায়েলের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক আদালতে যুদ্ধাপরাধ তদন্ত শুরু

আন্তর্জাতিক আদালত
বিজ্ঞাপন

ফিলিস্তিনের কাছ থেকে দখল করা ভূমিতে ইসরায়েল যুদ্ধাপরাধ করেছে কি না সে বিষয়ে আনুষ্ঠানিক তদন্ত শুরু করেছে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালত (আইসিসি)। বুধবার আদালতের চিফ প্রসিকিউটর ফাতু বেনসৌদা এক বিবৃতিতে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

বেনসৌদা আগেই জানিয়েছিলেন, ২০১৪ সালের গাজায় সহিংসতা চলাকালীন ইসরায়েলি সামরিক বাহিনী, ইসরায়েলি কর্তৃপক্ষ, হামাস এবং ফিলিস্তিনি সশস্ত্র গোষ্ঠীগুলোর মাধ্যমে অপরাধ সংঘটিত হয়েছে বলে বিশ্বাস করার ‘যুক্তিসঙ্গত ভিত্তি’ রয়েছে।

বুধবারের বিবৃতিতে তিনি বলেছেন, ফিলিস্তিনের পরিস্থিতি বিবেচনায় আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতের প্রসিকিউটরের কার্যালয়ের তদন্ত শুরুর বিষয়টি আজ নিশ্চিত করছি।

বিজ্ঞাপন

আইসিসির এ প্রসিকিউটর বলেন, তদন্তটি স্বাধীন, নিরপেক্ষ ও প্রভাবমুক্ত, ভয় বা পক্ষপাতহীনভাবে পরিচালিত হবে। আন্তর্জাতিক আদালতের এই তদন্ত প্রক্রিয়ার তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছে ইসরায়েল। তারা অবশ্য আইসিসির সদস্যও নয়।

বেঞ্জামিন নেতানিয়াহু এক বিবৃতিতে বলেছেন, ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে আমি নিশ্চিত করছি যে, আমরা এই ‘বিকৃত বিচারের’ বিরুদ্ধে সর্বশক্তি দিয়ে লড়ব। ইসরায়েলিদের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগকে ‘ভুয়া যুদ্ধাপরাধ’ বলেও মন্তব্য করেছেন তিনি।

ইসরায়েলের ঘনিষ্ঠ মিত্র যুক্তরাষ্ট্রও আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতের যুদ্ধাপরাধ তদন্ত শুরুতে ‘গভীর উদ্বেগ’ জানিয়েছে। তাদের দাবি, ইসরায়েল আইসিসির সদস্য না হওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে তদন্তের এখতিয়ার নেই আদালতের।

ফিলিস্তিনি প্রধানমন্ত্রী মোহাম্মদ শতায়ে আইসিসির পদক্ষেপকে ‘ন্যায়বিচার এবং মানবতার জয়’ বলে উল্লেখ করেছেন।

Advertisement