বৈশাখ ও জ্যৈষ্ঠের প্রচণ্ড গরমে বাড়ছে স্বাস্থ্য-সমস্যা, রোগ-জ্বরা

0
41

চলছে গ্রীষ্মকাল। বৈশাখ ও জ্যৈষ্ঠের প্রচণ্ড গরমে চারদিক অস্থির। সেই সঙ্গে রয়েছে বাতাসে অস্বাভাবিক আর্দ্রতা। সারাদেশে এখন গ্রীষ্মের দাবদাহে জীবন ওষ্ঠাগত। এ গরমে শিশু-কিশোর, যুবক-যুবতী, বৃদ্ধ-বৃদ্ধা সবাই প্রতিনিয়তই কোন না কোন স্বাস্থ্যসমস্যায় আক্রান্ত হচ্ছেন। ফলে জনজীবন বিপর্যস্ত। বাড়ছে গরমের স্বাস্থ্য-সমস্যা, রোগ-জ্বরা। ঘামাচি কিংবা পানি স্বল্পতার মতো সমস্যা প্রায় প্রত্যেকেরই হচ্ছে, আবার কেউ কেউ হিটস্ট্রোকের মতো মারাত্মক সমস্যায় আক্রান্ত হচ্ছেন। এর সঙ্গে হতে পারে অবসাদ, এলার্জি, সূর্যরশ্মিতে চর্ম পুড়ে যাওয়া, হজমের অভাবে বমি বা ডায়রিয়াজনিত রোগ ইত্যাদি।

পানি স্বল্পতা বা ডিহাইড্রেশন

গরমের কারণে সবচেয়ে বেশি যে সমস্যা হয় তা হলো পানি স্বল্পতা। প্রচুর ঘামের কারণে পানির সঙ্গে সঙ্গে শরীর থেকে প্রয়োজনীয় লবণও বেরিয়ে যায়। সাধারণত এর ফলে শরীরের রক্তচাপ কমে যায়, দুর্বল লাগে, মাথা ঝিমঝিম করে। পানি স্বল্পতা গরমের খুবই সাধারণ সমস্যা হলেও অবহেলা করলে তা মারাত্মক হয়ে যেতে পারে। বিশেষ করে শিশু, বৃদ্ধ ও অসুস্থ ব্যক্তি, যারা বাইরে অতিরিক্ত গরমের মধ্যে কাজ করেন এবং প্রয়োজনমতো পানি পান করার সুযোগ পান না, তারাই মারাত্মক পানি স্বল্পতায় আক্রান্ত হন বেশি। এক্ষেত্রে অজ্ঞান হয়ে যাওয়া এবং কিডনি বিকল হওয়ার মতো জটিলতর সমস্যা হওয়াও বিচিত্র নয়।

ঘামাচি এবং এলার্জি

গরমের কারণে ত্বকে ঘামাচি এবং এলার্জি হতে পারে। গরমের কারণে অতিরিক্ত ঘাম তৈরি হয় যার চাপে ঘর্মগ্রন্থি ও নালী ফেটে যায়, ফলশ্রুতিতে ত্বকের নিচে ঘাম জমতে থাকে। এটাই ঘামাচি। অনেক সময় ঘাম ও ময়লা জমে ঘর্মনালীর মুখ বন্ধ হয়ে যায় এবং সেখানে ইনফেকশন হতে পারে। এতে ঘামাচি ও এলার্জি বেড়ে যায় এবং ঘামে প্রচুর গন্ধ হতে পারে। ব্যাকটেরিয়া ছাড়াও ঘাম ও ময়লার কারণে ছত্রাকজনিত রোগও এ সময়ে বেশি হয়। গরমে যারা সরাসরি সূর্যের আলোর নিচে বেশিক্ষণ থাকেন, তাদের ত্বক পুড়ে যেতে পারে। এতে ত্বক লাল হয়ে যায়, জ্বালাপোড়া করে, চুলকায় এবং ফোস্কা পড়ে। মূলত সূর্যের অতিবেগুনি রশ্মিই এর জন্য দায়ী। যারা একটু ফর্সা, বা যাদের ত্বক নাজুক, তাদের এই সমস্যা বেশি হয়।

হিটস্ট্রোক বা অজ্ঞান হয়ে যাওয়া

গরমের সবচেয়ে মারাত্মক সমস্যা হলো হিটস্ট্রোক। শুরুতে হিটস্ট্রোকের পূর্বে হিট ক্র্যাম্পে দেখা দেয় যাতে শরীর ব্যথা করে, দুর্বল লাগে এবং প্রচণ্ড পিপাসা লাগে। পরবর্তীতে হিট এক্সহসশন দেখা দেয়, শ্বাস-প্রশ্বাস দ্রুত হয়, মাথাব্যথা করে এবং রোগী অসংলগ্ন আচরণ করতে থাকে। এ অবস্থায় দ্রুত ব্যবস্থা নেয়া না হলে শরীরের তাপ নিয়ন্ত্রণ ক্ষমতা নষ্ট হয়ে যায় এবং শরীরের তাপমাত্রা ১০৫ ডিগ্রী ফারেনহাইট ছাড়িয়ে যায়। একে হিট স্ট্রোক বলে। এর লক্ষণসমূহ হলো তাপমাত্রা দ্রুত ১০৫ ডিগ্রী ফারেনহাইট ছাড়িয়ে যায়, ঘাম বন্ধ হয়ে যায়, ত্বক শুষ্ক ও লাল হয়ে যায়, নিঃশ্বাস দ্রুত হয়, নাড়ির স্পন্দন ক্ষীণ ও দ্রুত হয়, রক্তচাপ কমে যায়, খিচুনি হয়, মাথা ঝিম ঝিম করে এবং রোগী অসংলগ্ন ব্যবহার করতে থাকে। রোগীর প্রস্রাবের পরিমাণ কমে যায়, অজ্ঞান হয়ে যায়, এমনকি শকেও চলে যেতে পারে।

ফুড পয়জনিং এবং পেটের পীড়া

গরমের সরাসরি প্রভাব ছাড়াও অন্য আনুষঙ্গিক সমস্যা হতে পারে। অনেকেই গরমে তৃষ্ণা মেটাতে বাইরে বা রাস্তাঘাটে বিক্রেতাদের কাছ থেকে অপরিষ্কার পানি বা সরবত খান, যা অনেক সময় বিশুদ্ধ নয়। ফলে ডায়রিয়া ও বমিতে আক্রান্ত হতে পারেন। একই কারণে এ সময়টাতে পানিবাহিত অন্যান্য রোগ যেমন টাইফয়েড, প্যারাটাইফয়েড, আমাশয়, জন্ডিস বা হেপাটাইটিস ইত্যাদি বেশি হয়। গরমে অনেকে প্রচুর পানি পান করেন, কিন্তু তাতে পর্যাপ্ত লবণ থাকে না। ফলে শরীরে লবণের অভাব দেখা দেয়। অতিরিক্ত গরমে অনেক সময় খাবার নষ্ট হয়ে যেতে পারে। ঐ খাবার খেলে বদহজমসহ অন্যান্য পেটের পীড়া দেখা দিতে পারে।

গরমের এসব সমস্যা থেকে বেঁচে থাকার জন্য যা করতে হবে তা হলো :

প্রয়োজন ছাড়া ঘরের বাইরে যাবেন না। যথাসম্ভব ঘরের ভিতরে বা ছায়াযুক্ত স্থানে থাকতে চেষ্টা করুন।

বাইরে বের হলে সরাসরি রোদ যতটুকু সম্ভব এড়িয়ে চলতে হবে। প্রয়োজনে মাথায় কাপড়, টুপি বা ছাতা ব্যবহার করতে হবে। পরনের কাপড় হতে হবে হাল্কা, ঢিলেঢালা, সুতি কাপড়। শরীর যতটা সম্ভব ঢেকে রাখতে হবে।

যারা মাঠে ময়দানে কাজ করেন তারা ছাতা ব্যবহার করবেন। মাঝেমধ্যে শীতল স্থান বা গাছের নিচে হলেও বসার চেষ্টা করবেন।

কিছু কিছু শিল্প কারখানায় প্রচুর গরমের মধ্যে কাজ করতে হয়। তারাও মাঝেমধ্যে গরম থেকে কিছু সময়ের জন্য বাইরে আসার চেষ্টা করবেন।

শরীরের উন্মুক্ত স্থানে সম্ভব হলে সানস্ক্রিন ব্যবহার করতে হবে, যা রোদে পোড়া থেকে সুরক্ষা দেবে।

প্রচুর পানি ও অন্যান্য তরল পান করতে হবে। যেহেতু ঘামের সঙ্গে পানি ও লবণ বের হয়ে যায়, তাই লবণযুক্ত পানীয় যেমন স্বাভাবিক পানিতে খাবার লবণ মিশাতে পারেন অথবা খাবার স্যালাইন পান করতে পারেন। অবশ্যই বিশুদ্ধ পানি ব্যবহার করতে হবে।

চা ও কফি যথাসম্ভব কম পান করা উচিত।

প্রয়োজনমতো গোসল করতে হবে এবং শরীর ঘাম ও ময়লামুক্ত রাখতে হবে।

শ্রমসাধ্য কাজ যথাসম্ভব কম করতে হবে। এক্ষেত্রে কিছুক্ষণ পরপর বিশ্রাম নিতে হবে ও প্রচুর পানি ও স্যালাইন পান করতে হবে।

গুরুপাক খাবার এড়িয়ে চলতে হবে।

সাধারণ খাবার যেমন ভাত, ডাল, সবজি, মাছ ইত্যাদি খাওয়াই ভাল।

খাবার যেন টাটকা হয় সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। নানা রকম ফল যেমন আম, তরমুজ ইত্যাদি এবং লেবুর সরবত শরীরের প্রয়োজনীয় পানি ও লবণের ঘাটতি মেটাবে।

শিশু ও বয়ষ্কদের বেলায় আরও বেশি সতর্ক হতে হবে। বাচ্চারা এ সময়টাতে স্কুলে গিয়ে বাইরে খেলাধুলা, দৌড়াদৌড়ি না করে, সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। বিদ্যালয়ে যাওয়ার সময় যথেষ্ট পানি সঙ্গে দিন। হালকা রঙের পাতলা সুতি পোশাক এবং ফুলপ্যান্টের বদলে হাফপ্যান্ট পরাতে পারেন।

বয়স্করা, বিশেষ করে যাদের অন্যান্য রোগ আছে, তারা যতদূর সম্ভব রোদে চলাফেরা এড়িয়ে চলুন।

প্রচণ্ড গরমে কেউ যদি অসুস্থ হয়ে যায় তবে দ্রুত ব্যবস্থা নিতে হবে

রোগীকে দ্রুত শীতল কোন স্থানে নিয়ে যেতে হবে।

ফ্যান বা এসি ছেড়ে দিতে হবে, সম্ভব না হলে পাখা দিয়ে বাতাস করতে হবে।

রোগীর টাইট বা গরম কাপড় খুলে ফেলতে হবে এবং ভেজা কাপড়ে শরীর মুছে ফেলতে হবে।

সম্ভব হলে গোসল করতে হবে।

রোগীকে প্রচুর পানি ও খাবার স্যালাইন পান করতে দিতে হবে।

যদি কেউ হিট স্ট্রোকে আক্রান্ত হয় এবং অজ্ঞান হয়ে যায়, তবে দ্রুত শরীরের তাপমাত্রা কমাতে হবে। এক্ষেত্রে রোগীকে অবশ্যই দ্রুত হাসপাতালে নিতে হবে, ঘরে চিকিৎসা করার কোন সুযোগ নেই।

আমাদের সবাইকেই গরমের স্বাস্থ্য ঝুঁকি সম্পর্কে সচেতনতা এবং এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়া অত্যন্ত জরুরী, বিশেষ করে বয়স্ক এবং শিশুদের ক্ষেত্রে আরও জরুরী। স্বাস্থ্যঝুঁকি সম্পর্কে সচেতন হয়ে সেই অনুযায়ী প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিলে গরমকালের স্বাস্থ্যসমস্যা থেকে পরিত্রাণ পাওয়া সম্ভব।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.