একবার করোনা হলে সুরক্ষিত থাকা যাবে ৫ মাস: গবেষণা

বিজ্ঞাপন

প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসে একবার আক্রান্ত হওয়ার পর মানুষ কমপক্ষে পাঁচ মাসের জন্য সুরক্ষিত থাকতে পারে। এ সময়ের মধ্যে আবার করোনায় সংক্রমিত হওয়ার সম্ভাবনা কম। তবে দেহে অ্যান্টিবডি তৈরি হওয়ার পরও সেই ব্যক্তি ভাইরাস বহন করতে পারেন এবং তা ছড়িয়ে দিতে পারেন।

পাবলিক হেলথ ইংল্যান্ডের এক গবেষণায় এই তথ্য উঠে এসেছে। শুক্রবার (১৫ জানুয়ারি) এমনটাই জানিয়েছে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি।

গবেষণায় দেখা গেছে, যারা করোনায় একবার সংক্রমিত হয়েছেন, তারা ৮৩ শতাংশ কম ঝুঁকিতে থাকেন। তবে বিজ্ঞানীরা সতর্ক করেছেন, কিছু মানুষ আবার করোনায় সংক্রমিত হতে পারেন ও অন্যদের সংক্রমিত করতে পারেন। এ কারণে করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হলেও মানুষকে ঘরে থাকা ও স্বাস্থ্যবিধির নিয়ম মানতে হবে।

বিজ্ঞাপন

গবেষণার নেতৃত্ব দেওয়া মার্কিন অধ্যাপক সুশান হপকিন্স বলেছেন, সাধারণভাবে মানুষ যত দিন ভাবে, তার চেয়ে বেশি সময় পর্যন্ত করোনাভাইরাসের প্রতিরোধক্ষমতা থাকে। গবেষণার এই ফলাফল খুবই আশাব্যঞ্জক। তবে সতর্ক থাকার কোনো বিকল্প নেই।

তিনি আরও উল্লেখ করেন, গবেষণার একটি দিক উদ্বেগের। সেটি হলো, যারা দ্বিতীয়বার করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন, তাদের মধ্যে অনেকের শরীরে ভাইরাস উচ্চমাত্রায় ছিল। কিন্তু তাদের কোনো উপসর্গ ছিল না। তারা সহজেই অন্যদের সংক্রমিত করতে পারেন।

গবেষক সুশান হপকিন্স জানান, একবার কারও করোনা হলে খুব কম ক্ষেত্রে আবার সংক্রমিত হওয়ার ঝুঁকি থাকে। কারণ, একবার করোনায় সংক্রমিত ব্যক্তির শরীরে প্রতিরোধক্ষমতা তৈরি হয়ে যায়। তবে তার অন্যদের সংক্রমিত করার ঝুঁকি থাকে।

যুক্তরাজ্যের স্বাস্থ্যকর্মীদের ওপর চালানো এক গবেষণায় উঠে এসেছে এমন তথ্য। গতবছর জুন থেকে নভেম্বরের মধ্যে যুক্তরাজ্যজুড়ে স্বাস্থ্যসেবা কর্মীদের ওপর এ গবেষণা চালানো হয়। প্রায় ২১ হাজার স্বাস্থ্যকর্মীর নিয়মিত করোনা পরীক্ষা করা হয়। করোনায় সংক্রমিত এমন ব্যক্তিদের ও আগে সংক্রমিত হয়েছেন এমন ব্যক্তিদের এই পরীক্ষায় অন্তর্ভুক্ত করা হয়। যাদের শরীরে করোনার কোনো অ্যান্টিবডি পাওয়া যায়নি, ধরে নেওয়া হয়েছে তারা এই ভাইরাসে সংক্রমিত হননি। এই সময়ের মধ্যে ৩১৮ জনের নতুন করে সংক্রমণের সম্ভাবনা দেখা দেয়।

শরীরে অ্যান্টিবডি রয়েছে এমন ৬ হাজার ৬১৪ জনের মধ্যে মাত্র ৪৪ জনের নতুন সংক্রমণের সম্ভাবনা ছিল। গবেষকেরা নমুনা পরীক্ষা করে দেখেন, প্রথম সংক্রমণের ৯০ দিনের বেশি সময় পরে তারা আবার সংক্রমিত হয়েছেন। কিছু গবেষণা এখনো চলছে। গবেষকেরা বলছেন, এসব গবেষণার মধ্য দিয়ে আরও নতুন ফলাফল আসতে পারে। সূত্র: বিবিসি

Advertisement